মির্জা কাদের বকস্ – Mirza Kader Boks

আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুরের বিখ্যাত মির্জা পরিবারের কৃতিসন্তান মির্জা কাদের বকস্ দিনাজপুর জেলা বারের একজন লব্ধ প্রতিষ্ঠ আইনজীবি, মুসলিম লীগ জেলা শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি (১৯১৫-১৬), বঙ্গীয় আইন পরিষদের সদস্য (এমএলসি), দিনাজপুর পৌরসভার প্রথম মুসলিম ভাইস-চেয়ারম্যান সহ বহু গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। একজন অক্লান্ত পরিশ্রমী ও উদ্যোক্তা মির্জা কাদের বকস্ সমকালীন বহু সামাজিক সংস্থা এবং সংগঠন, বিশেষ করে শিক্ষা বিস্তারের একজন অগ্রপথিক ছিলেন।

সাহসিকতা, নির্ভিক কন্ঠ ও স্পষ্টবাদীতা ছিল মির্জা কাদের বকস্ -এর সহজাত চরিত্রগুণ। সেজন্য জনাব মির্জা কাদের বকস্’কে বলা হতো দিনাজপুরের সিংহ পুরুষ। তিনি যে কালের মানুষ তখন দেশে প্রবল সাম্প্রদায়িক বিভেদ-বিদ্বেষ ছিল, কিন্তু সমাজের সেই দুরবস্থাটি তাঁর কাছে ছিল অপ্রীতিকর ও অস্বস্তিকর। সাম্প্রদায়িকতার গন্ধ পেলেই তিনি প্রতিপক্ষকে ছুঁড়ে মারতেন রুঢ়তম উচিত কথা। স্বীয় সমাজের দাবী আদায়ে তিনি ছিলেন আপোষহীন নেতা। এ নিয়ে প্রচলিত প্রচুর ঘটনাও গল্প কাহিনীর দর্পণে ভাস্বর হয়ে আছে তাঁর সত্যিকারের পরিচয়। মির্জা কাদের বকস্ ছিলেন দিনাজপুর শহরের বালুবাড়ী নিবাসী। বালুবাড়ীতে স্বীয় বাসভবনের মসজিদটি (সাবেক মসজিদ) তারই আমলে নির্মিত হয়। মির্জা কাদের বকস্ -এর বংশধর জনাব মির্জা আব্দুল লতিফের তথ্য অনুযায়ী জলপাইগুড়ি থেকে তেতুঁলিয়া, আলোয়াখোয়া হয়ে দিনাজপুরগামী রাস্তাটি কাদের বকস্ এর উদ্যোগে তৈরি করা হয়। এই রাস্তাটি ছিল গ্রান্ডট্রাংক রোড সংযোগ সড়ক।

মির্জা কাদের বকস্ পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর গ্রামে ১৮৯১ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা উজির আলী মুস্তাজির ছিলেন একজন ভূস্বামী।

কাদের বকস্ মির্জাপুর স্কুল থেকে বাল্যশিক্ষা সমাপ্ত করেন। এরপর তিনি জলপাইগুড়ি জিলা স্কুল থেকে এন্ট্রাস এবং কলকাতা প্রেসিডেন্সী কলেজ থেকে ইংরেজিতে অনার্স পাস করেন। অতঃপর জনাব কাদের বকস্ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম.এ এবং বি.এল ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯১৬ সালে দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতিতে যোগদান করে আইন ব্যবসা শুরু করেন।

মির্জা কাদের বকস্ ১৯২৩- ১৯২৯ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত এক কক্ষ বিশিষ্ট বঙ্গীয় আইন পরিষদের সদস্য (এমএলসি) নির্বাচিত হন। ১৯৩৭ থেকে ১৯৪৫ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত বঙ্গীয় আইন ব্যাবস্থাপক সভার সদস্য নির্বাচিত হন এবং আমৃত্যু এই পদে বহাল থাকেন। ১৯৩৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারী প্রতিষ্ঠিত খাজা নাজিমউদ্দীন মুসলিম হল -এর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস-প্রেসিডেন্ট ছিলেন মির্জা কাদের বকস্। ১৯৩৭ খৃষ্টাব্দে দিনাজপুর জেলা মুসলিম লীগ কমিটি গঠিত হলে তিনি জেলা শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নির্বাচিত হন এবং আমৃত্যু এই পদে বহাল ছিলেন। তিনি দিনাজপুর জেলা বোর্ডের (বর্তমান জেলা পরিষদ) একজন প্রভাবশালী সদস্য ছিলেন এবং ১৯৩৯- ৪৪ খৃষ্টাব্দ দিনাজপুর পৌরসভার প্রথম মুসলিম ভাইস-চেয়ারম্যান পদ অলংকৃত করেছিলেন। মির্জা কাদের বকস্ ১৯৩৮ সালে রেলওয়ে বোর্ডের সদস্য ও ১৯৪০-৪৫ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত তিনি জেলা পাবলিক প্রসিকিউটরের দায়িত্ব পালন করেন।

মির্জা কাদের বকস্ ১৯৪৫ সালের অক্টোবরে ভারতের ঝারখন্ড (তৎকালীন বিহার ) প্রদেশের দুমকা জেলার মধুপুর গ্রামে মৃত্যুবরণ করেন। সেখানেই তাঁকে সমাহিত করা হয়।

 


তথ্যসূত্রঃ মির্জা লিও । মুহম্মদ মনিরুজ্জামান
Last updated: 9 December 2023

Share:

Facebook
Twitter
Pinterest
LinkedIn

Photo

মির্জা কাদের বকস্
(১৮৯১ - ১৯৪৫)

  • আইনজীবি
  • রাজনীতিবিদ
  • এক কক্ষ বিশিষ্ট বঙ্গীয় আইন পরিষদের সদস্য (এমএলসি)
  • বঙ্গীয় আইন ব্যাবস্থাপক সভার সদস্য
  • প্রতিষ্ঠাতা ভাইস-প্রেসিডেন্ট, খাজা নাজিমউদ্দীন মুসলিম হল
  • প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মুসলিম লীগ দিনাজপুর জেলা শাখা কমিটি
  • প্রথম মুসলিম ভাইস-চেয়ারম্যান, দিনাজপুর পৌরসভা
  • দিনাজপুর রেলওয়ে বোর্ডের সদস্য
  • দিনাজপুর জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর